সিলেটে দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে কর্মবিরতি:ভোগান্তিতে পড়ছেন সাধারণ যাত্রীরা

121 total views, 1 views today

সিলেটসহ সারাদেশে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে পরিবহন শ্রমিকদের কর্মবিরতি। ‘সড়ক পরিবহন আইন -২০১৮’ এর সংশোধনের দাবিতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের ডাকে টানা ৪৮ ঘন্টার এ কর্মবিতরতি শুরু হয় রোববার সকাল ৬টা থেকে।

গণপরিবহন বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়ছেন সাধারণ যাত্রীরা। অলিখিত নিয়মে ব্যক্তিগত গাড়িও রাস্তায় আটকে দিচ্ছে পরিবহন শ্রমিকরা। বিভিন্ন জায়গায় অ্যাম্বুলেন্সও আটকে দিচ্ছে তারা। কর্মবিরতির কারনে আজও সিলেট থেকে কোনো বাস ছেড়ে যায়নি।

এদিকে কর্মবিরতি চলায় মহাসড়কগুলো রয়েছে যানবাহন শূন্য।

গতকাল পরিবহন শ্রমিকরা সিলেটে নজিরবিহীন নৈরাজ্য চালায়। বড়লেখায় অ্যাম্বুলেন্স আটকে রাখার কারণে প্রাণ গেছে এক শিশুর। বিয়ানীবাজারে বরযাত্রীদের সাথে সংঘর্ষ হয়েছে পরিবহন শ্রমিকদের। হবিগঞ্জে আহত হয়েছেন এক সংবাদকর্মী। সিলেট নগরীতে প্রাইভেট কার চালককে মারধর ছাড়াও অনেক জায়গায় পিকেটিংসহ বিদেশ ফেরত যাত্রীদের কাছ থেকে করেছে চাঁদাবাজি।

গত শনিবার ফেডারেশনটির সভাপতি সংসদ সদস্য ওয়াজিউদ্দিন খান ও সাধারণ সম্পাদক উছমান আলী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত শুক্রবার জাতীয় সংসদে ‘সড়ক পরিবহন আইন -২০১৮’ পাস হয়েছে। এ আইনে শ্রমিক স্বার্থ রক্ষা ও পরিপন্থী উভয় ধারা রয়েছে। এছাড়া, সড়ক দুর্ঘটনাকে দুর্ঘটনা হিসেবে গণ্য না করে, অপরাধ হিসেবে গণ্য করে আইন পাস করা হয়েছে। আইনে সড়ক দুর্ঘটনা মামলায় অপরাধী হয়ে ফাঁসির ঝুঁকি রয়েছে। এমনই অনিশ্চিত ও আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পেশায় দায়িত্ব পালন করা শ্রমিকদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। এর কারণে আন্দোলন ছাড়া বিকল্প কোনো তাদের সামনে খোলা নেই। এ আইনের সংশোধন ও পরিস্থিতিতে সমস্যা নিরসনের লক্ষ্যে রোববার সকাল ৬টা থেকে দেশজুড়ে ৪৮ ঘণ্টার কর্মবিরতি পালন করা হবে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সড়ক দুর্ঘটনায় সব ধরণের মামলা জামিনযোগ্য করতে হবে। শ্রমিকদের অর্থদ- ৫ লাখ টাকা করা যাবে না। সড়ক দুর্ঘটনা তদন্ত কমিটিতে শ্রমিক প্রতিনিধি রাখতে হবে। ড্রাইভিং লাইসেন্সে শিক্ষাগত যোগ্যতা পঞ্চম শ্রেণী করতে হবে। ওয়েট স্কেলে (ট্রাক ওজন স্কেল) জরিমানা কমাতে হবে।

এর আগে গত ৭ অক্টোবর জাতীয় সংসদে সদ্য পাস হওয়া সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনসহ সাত দফা দাবিতে পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ডাকা ধর্মঘট শুরু হয়েছিল। সে সময় (৯ অক্টোবর) সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের আশ্বাসে ধর্মঘট প্রত্যাহার করেছিল ট্রাক পরিবহন শ্রমিকরা। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সিলেটের সমন্বয়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা সেলিম আহমদ ফলিক জানান, সংগঠনের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অনুযায়ী সিলেটের সর্বাত্মক কর্মবিরতি পালন করা হবে। তিনি শ্রিমিকদের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মানার আহবান জানান।

কমেন্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.