কমান্ড মেনে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন: বিজিবি দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

সিলেট নিউজ টাইমস্ ডেস্ক
ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কমান্ড মেনে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে বিজিবি (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ) সদস্যদের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, আমার আবেদন থাকবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কমান্ড মেনে চলবেন এবং শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখবেন। আর আপনাদের কোনো সমস্যা হলে সেটা দেখার জন্য আমরা তো আছিই। কাজেই আপনারা সব সময় সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে আপনাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করবেন। যেন দেশ আজ অর্থনৈতিকভাবে যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, সেই অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকে।

বুধবার সকালে রাজধানীর পিলখানায় বিজিবি সদর দফতরে বিজিবি দিবস-২০১৯ উপলক্ষে কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সরকার এ বাহিনীর সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য বিজিবি পুনর্গঠনের আওতায় ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করে যাচ্ছে এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশকে একটি বিশ্বমানের আধুনিক সীমান্তরক্ষী বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ ভিশন-২০৪১ পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।

তিনি বলেন, আমি আশা করি, আপনারা সব সময় দেশপ্রেম, সততা এবং দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে এ বাহিনীর সুনাম ও মর্যাদা সমুন্নত রাখবেন।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, জাতির পিতার হাতে গড়া এ প্রতিষ্ঠান। অনেক ঘাত-প্রতিঘাত পার হতে হয়েছে। আগামী দিনে এই সীমান্তরক্ষী বাহিনী সারা বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মর্যাদা অর্জন করবে- সে বিশ্বাস আমার আছে।

তিনি বিজিবি সদস্যদের উদ্দেশে বলেন, আপনাদের কাছে এটাই আমরা চাই- আপনারা এ দেশকে ভালোবেসে সে দেশের মানুষের প্রতি কর্তব্য পালন করবেন। দেশ যদি উন্নত হয় তাহলে আপনাদের পরিবার-পরিজন এবং দেশের মানুষই উন্নত হবে। সে কথাটা সব সময় মনে রাখবেন।

প্রধানমন্ত্রী ২০০৯ সালের ২৫-২৬ ফেব্রুয়ারি পিলখানায় সংঘটিত বিদ্রোহ ও হত্যাকাণ্ড বিজিবির (তৎকালীন বিডিআর) ইতিহাসের একটি কালো অধ্যায় হিসেবে উল্লেখ করেন। ওই ঘটনায় ৫৭ জন সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন নিহত হন।

প্রধানমন্ত্রী ওই ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, বাহিনীর তৎকালীন মহাপরিচালকসহ যেসব অফিসার, অন্যান্য সদস্য ও বেসামরিক ব্যক্তি শহীদ হয়েছেন, আমি তাদের আত্মার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করছি। তিনি বলেন, বিডিআর বিদ্রোহের সঙ্গে সম্পৃক্ত উচ্ছৃঙ্খল ও বিপথগামী বিডিআর সদস্যদের আইনের আওতায় এনে বিচারের মাধ্যমে এ বাহিনী এখন সম্পূর্ণ কলঙ্কমুক্ত হয়েছে।

জানুয়ারি মাসে অত্যাধুনিক ২টি হেলিকপ্টার বিজিবিতে যুক্ত হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ৩২৮ কিমি. সীমান্তে স্মার্ট ডিজিটাল সার্ভিল্যান্স অ্যান্ড ট্যাকটিক্যাল রেসপন্স সিস্টেম স্থাপনের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে ১৯৭৪ সালে বিডিআর সদর দফতর পিলখানায় বঙ্গবন্ধুর প্রদত্ত ভাষণ বাজিয়ে শোনানো হয়। সেই ভাষণের আলোকে এই বাংলার মাটি থেকে চোরাকারবারি, দুর্নীতি এবং সমাজবিরোধীদের উৎখাতে এই বাহিনীর সদস্যদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর উদাত্ত আহ্বানের সঙ্গেও একাত্মতা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। সেই সঙ্গে মিয়ানমার থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয়গ্রহণকারী প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গার পুনর্বাসনে বিজিবির ভূমিকার প্রশংসা করেন।

এর আগে বিজিবি সদস্যরা মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে রাষ্ট্রীয় সালাম জানায়। কুচকাওয়াজ পরিদর্শন এবং অভিবাদন গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী। একটি সুসজ্জিত খোলা জিপে করে প্যারেড পরিদর্শনকালে বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলাম এবং প্যারেড কমান্ডার কর্নেল এএমএম খায়রুল কবির প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।

এ ছাড়া মোটর শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয় এবং বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক কলেজ এবং বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজের প্রায় ৬শ’ শিক্ষার্থী ‘স্বাধীনতা ও উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ শীর্ষক ডিসপ্লে প্রদর্শন করে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বিজিবি দিবস উপলক্ষে বীরত্বপূর্ণ ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বিজিবির কর্মকর্তাদের মাঝে বর্ডার গার্ড পদক-২০১৯, রাষ্ট্রপতি বর্ডার গার্ড পদক-২০১৯, বর্ডার গার্ড পদক সেবা-২০১৯ এবং রাষ্ট্রপতি বর্ডার গার্ড পদক সেবা-২০১৯ বিতরণ করেন।

প্রধানমন্ত্রী কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণকারী প্যারেড কমান্ডার এবং অন্যান্য কন্টিনজেন্ট কর্মকর্তার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এর আগে প্রধানমন্ত্রী পিলখানায় বিজিবি সদর দফতরের বীরউত্তম আনোয়ার হোসেন প্যারেড গ্রাউন্ডে পৌঁছলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন এবং বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম তাকে অভ্যর্থনা জানান। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বীরউত্তম ফজলুর রহমান খন্দকার মিলনায়তনে বিজিবি সদস্যদের বিশেষ দরবারে অংশগ্রহণ করেন।

কমেন্ট