যেভাবে ঘুষ বাণিজ্যে কোটিপতি ফুলবাড়িয়া উপজেলা ভূমি নাজির

সিলেট নিউজ টাইমস্ ডেস্ক,
উপজেলা ভূমি অফিসের তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী অসীম কুমার রায় রাতারাতি ঘুষ বাণিজ্য করে হয়েছেন কোটিপতি। তার রয়েছে কোটি টাকার আলিশান ফ্ল্যাটবাড়ি, জমি, ব্যাংক ব্যালেন্স ও অঢেল সম্পত্তি। সন্তানকে বিদেশে পাঠিয়ে করাচ্ছেন পড়ালেখা। ভুক্তভোগীদের লিখিত অভিযোগে জানা যায়, ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলা ভূমি অফিসের প্রধান সহকারী (নাজির) অসীম কুমার রায়, ফুলবাড়িয়া ইউনিয়ন ও পৌরসভা ভূমি অফিসের নায়েব অজিত কুমার দাসের ঘুষ, দুর্নীতিতে অতিষ্ঠ সেবাগ্রহীতারা। ঘুষ বাণিজ্য ও দুর্নীতির অভিযোগে কিছুদিন আগে অজিত কুমারকে অপসারণ করা হয়েছে।

অপরদিকে,অসীম কুমার রয়েছেন স্ব-কর্মস্থলে। জমির নামজারিসহ ভূমি সংক্রান্ত কোনো কাজ করতে গেলে তাকে ঘুষ না দিলে তিনি ফাইলবন্ধি করে কাগজপত্র আটকে রাখেন। তার রয়েছে একাদিক দালাল সিন্ডিকেট। তিনি দীর্ঘ ১৮ বছর ফুলবাড়ি উপজেলা ভূমি অফিসে রয়েছেন বড় এক কর্মকর্তাকে ম্যাসেজ করে। সেজন্য তিনি আদিপত্য বিস্তার করে চলেন। তার ইশারায় ভুয়া নামজারি সহ সব কাজ সম্পন্ন হলেও চাহিদা অনুযায়ী টাকা না দিলে হয়না প্রকৃত ভূমি মালিকদের কোনো কাজ। তার কাছে বেশি নাজেহাল হচ্ছেন হিন্দু সম্প্রদায়ের ভূমি মালিকরা। জমাখারিজ ও মিস কেইস ৪৫ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি হওয়ার কথা থাকলেও অসীম কুমার মোটা অংকের টাকার জন্য কালক্ষেপণ করেন। টাকা না পেলে নানা আইন-কানুন দেখিয়ে বাতিল করে দেন। অফিস সহকারীর উপর নির্ভর এসিল্যান্ডকে নানাভাবে ভুল বুঝিয়ে অসীম একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে ক্ষমতার অপব্যবহার করে চলেছেন।

পূর্বের কর্মস্থলে দু-একবছর চাকরি করার পর ঘুষ,দুর্নীতির অভিযোগে তিনি বারবার বদলি হন। ফুলবাড়িয়া উপজেলা ভূমি অফিসেও দুর্নীতির অভিযোগে তাকে অন্যত্র বদলি করা হয়। স্ব-স্থানে ঘাপটি মেরে বসে আছেন ক্ষমতার অপব্যবহার করে। ২০১২ সালের ২০ এপ্রিল ফুলবাড়িয়া উপজেলা ভূমি অফিসে যোগদান করে ২০১৫ সালের ১ অক্টোবর প্রধান সহকারীর হিসেবে পদোন্নতি পান। পদোন্নতি পাওয়া ব্যক্তির বদলি হওয়ার নিয়ম থাকলেও টাকা ও প্রভাব বিস্তার করে তিনি সে বদলিও আটকে দেন।

অসীম কুমার ঘুষ,দুর্নীতির মাধ্যমে করেছেন অঢেল সম্পত্তি। ময়মনসিংহ শহরের আটারবাড়ি এলাকায় তার রয়েছে প্রায় দেড় কোটি টাকার আলিশান ফ্ল্যাটবাড়ি, বাইপাস এলাকার রহমতপুরে ২০ শতাংশ জমি। তার বাহিরে নামে-বেমানে রয়েছে জায়গা জমি, ব্যাংক ব্যালেন্স। বিদেশে মেয়েকে রেখে পড়ালেখা করাচ্ছেন বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ করা হয়।

ঘুষখোর, দুর্নীতিবাজ অসীমের দৃষ্টান্ত শাস্তি দাবি করে অন্যত্র বদলি করতে ও ভূমি অফিসকে দালাল, দুর্নীতিমুক্ত রাখতে এরই মধ্যে সার্ভে সমিতি ও উপজেলাবাসী মানববন্ধন করেন। তখন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী ভূমি কর্মকর্তা ও উপজেলা চেয়ারম্যান আন্দোলনকারীদের নাজির অসীম কুমারকে অন্যত্র বদলির ব্যাপারে আশ্বস্ত করেন। পর্বর্তীতে নাজিরের বদলির বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেন নি। উপজেলার ভুক্তভোগীদের পক্ষে মোখলেছুর রহমান, মো: সিরাজুল ইসলাম, মুহাম্মদ জালাল উদ্দিন ও মো: ইদ্রিছ আলী স্বাক্ষরিত লিখিত অভিযোগপত্র ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, দুর্নীতি দমন কমিশন, ফুলবাড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবর প্রেরণ করেন। কর্তৃপক্ষ দুর্নীতিবাজ অসীম কুমার রায়কে শাস্তির আওতায় এনে ফুলবাড়িয়া উপজেলা ভূমি অফিসকে দালাল ও দুর্নীতিমুক্ত অফিস হিসেবে ঘোষণা করবেন এমন স্বপ্ন দেখছেন উপজেলাবসী।

কমেন্ট