দেশের উন্নয়নের জন্যই আমি অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি: প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:: বঙ্গবন্ধু এদেশকে স্বাধীন করে গেছেন। কিন্তু তার কাজ শেষ করে যেতে পারেননি। আমি সবসময়ই মনে করি এটা (ক্ষমতা) আমার পিতার স্বপ্ন পূরণের জন্য আমার কাছে একটা সুযোগ এবং সেটাই আমি সর্বান্তকরণে করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমাদের জনগণের জীবন-মানের উন্নয়নই আমার লক্ষ্য, যাতে তারা খাদ্য, বাসস্থান, চিকিৎসাসেবা এবং শিক্ষাসহ সকল মৌলিক সুবিধাগুলো পেতে পারে। দেশের উন্নয়নের জন্যই আমি অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার নবগঠিত সরকারকে শুভেচ্ছা জানাতে ওআইসিভুক্ত দেশের রাষ্ট্রদূতগণের ১৭ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল রোববার সন্ধ্যায় গণভবনে আসেন। এসময় তাদের উদ্দেশে দেয়া বক্তব্যে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, জনগণ বুঝেছে যে, আমরা তাদের জন্যই কাজ করি। এজন্যই তারা আমাদেরকে ভোট দিয়েছে। তাই বাংলাদেশকে আগামী দিনের জন্য তৈরি করে দিয়ে যেতে চাই।

শেখ হাসিনা তার সরকারের প্রতি ওআইসিভুক্ত রাষ্ট্রগুলোর সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, ‘আমি খুব গর্ব অনুভব করছি। কারণ ভাতৃপ্রতিম মুসলিম দেশগুলোর প্রতিনিধিরা এখানে এসেছেন এবং আমাদের সরকারের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের জনগণ এটা জেনে খুব খুশী হবে যে, সকল মুসলিম দেশ আমাদের সরকারকে সমর্থন করছে এবং আমরা একযোগে কাজ করবো সমগ্র বিশ্বের মুসলিম ভাইদের অগ্রগতির জন্য।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ একটি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ এবং প্রত্যেকে শান্তিতে তাদের নিজ নিজ ধর্ম-কর্ম পালন করতে পারে। তিনি সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে তার সরকারের দৃঢ় অবস্থানের কথাও পুনর্ব্যক্ত করেন।

প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দানকারী ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রদূত ইউসুফ এস ওয়াই রামাদান বলেন, ‘আমরা সকল মুসলিম দেশের রাষ্ট্রদূতগণ একত্রে গণভবনে এসে আপনার অবিস্মরণীয় বিজয়ে আপনাকে (প্রধানমন্ত্রী) শুভেচ্ছা জানাতে পারায় গভীর সম্মানিত বোধ করছি।’

কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই), মিশর, ইন্দোনেশিয়া, আফগানিস্তান, তুরস্ক, কুয়েত, মরক্কো, মালদ্বীপের রাষ্ট্রদূত এবং ইরাক, ওমান, পাকিস্তান এবং সৌদি আরবের চার্জ দ্যা অ্যাফেয়ার্সগণ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন স্বাগত বক্তৃতা করেন। প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম, মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. সাজ্জাদুল হাসান এবং প্রেস সচিব ইহসানুল করিম উপস্থিত ছিলেন।

কমেন্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.