পূর্ব শত্রুতার জেরধরে কান্দিগাঁও গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় মহিলাসহ আহত ৪

পূর্ব শত্রুতার জেরধরে ভাইয়ের বসত ঘরে বাতিজা ভাই ও তার ভাড়াটিয়া লোকজনে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সিলেট সদর উপজেলা উপজেলা কান্দিগাঁও ইউনিয়নের কান্দিগাঁও গ্রামে জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরুদ্ধের জেরধরে হেলাল উদ্দিন, আজিজ উদ্দিন, জলাল উদ্দিন, রহিম আলী, তেরাব আলী সহ ১৫-২০ জন দেশীয় অস্ত্র সজ্জিত হয়ে নুর মিয়া ও তার স্ত্রী মেয়ে এবং ছেলেকে বাড়িতে হামলা চালালে অন্তত ৪ জন আহত হয়েছে। এই ঘটনাটি ঘটে ২১শে মে বিকাল ৫টার দিকে নুর মিয়া বসত ঘরে।

আহতরা হলেন নুর মিয়া (৫০), তার স্ত্রী ফুলজান বিবি (৪০), ছেলে আব্দুস সহীদ (২৩) ও মেয়ে শেলি আক্তার (২০) । বর্তমানে সিলেট এম এ জি ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

এলাকার সূত্র জানাযায়, হেলাল উদ্দিন, আজিজ উদ্দিন, রহিম আলী সহ ১৫-২০ জন লোক দেশীয় অস্ত্র সজ্জিত হয়ে নুর মিয়া বাড়িতে হামলা চালিয়ে ঘরের বিভিন্ন মালামাল সহ তছনছ করে দিয়েছে। এই সময় মেয়ে শেলি থেকে ১ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার নগদ নুর মিয়ার জমি বিক্রয় টাকা ৩লক্ষ টাকা ও ভোটার আই ডি কার্ড এবং জমির জরুলি কাগজপত্র নিয়ে শটকে পড়ে।

এব্যাপাওে নুর মিয়া সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান পূর্ব শত্রুতার জেরধরে আমার চাচাতো ভাই ছেলে হেলাল উদ্দিন, আজিজ উদ্দিন,সিরাজুল ইসলাম, হবিব, জলাল, তেরা মিয়া, কয়ছর ও আমির আলীসহ ১৫/ ২০জন ভাঢ়াটিয়া লোক জন্য এনে আমার বাড়ীতে হামলা চালায় এবং আমার স্ত্রী ও মেয়ে কাপর ধরে টানা হেছরা চালায় এসময় আমি বাধা দিতে চাইলে আমরা উপর হেলাল উদ্দিন দা দিয়ে আহাত করে, এবং আমার মেয়ে কে ঘর থেকে বাহির করা চেষ্ঠা চালায়, এসময় আমরা স্ত্রী ও ছেলে বাধা দিলে তখন সিরাজুল ও জলাল হাতে দেশী অস্ত্র দিয়ে আহত করে , আহত করা পর মেয়ে শেলি গলা থেকে ১ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার আমার জমি বিক্রয় করা ৩লক্ষ টাকা ও ভোটার আই ডি কার্ড এবং জমির জরুলি কাগজপত্র নিয়ে পালিয়ে যায়।

এই ব্যাপারে জালালাবাদ থানায় যোগাযোগ করা হলে ওসি শফিকুল ইসলাম জানান যে ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনারস্থানে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তবে লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইন অনুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই ব্যাপারে নুর মিয়া বাদী হয়ে হেলাল উদ্দিন, আজিজ উদ্দিন, আব্দুর রহিম সহ ১০-১২ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করবেন তিনি বলেন।

কমেন্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published.