এসডিসি-সমষ্টি প্রকল্পের মাঠ পরিদর্শণ করলেন সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত

বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত এইচ. ই. রেঁনে হোলেনস্টেইন এসডিসি-সমষ্টি প্রকল্পের মাঠ পরিদর্শণ করলেন। ৪ মার্চ রোববার মাঠ পরিদর্শনকালে তাঁর সাথে ছিলেন বাংলাদেশে অবস্থিত সুইজারল্যান্ড দূতাবাসের ফাস্ট সেক্রেটারী মি. ডেরেক জর্জ।

কেয়ার বাংলাদেশ-এর কারিগরি সহযোগীতায়, আইডিয়া’র বাস্তবায়নে মালগ্রাম-এর জারা লেবু উৎপাদনে বিভিন্ন কার্যক্রমের অগ্রগতি এ পরিদর্শনের মূল লক্ষ্য।

রেঁনে হোলেনস্টেইন পরিদর্শণকালে মালগ্রামের জারা লেবু চাষের সাথে জড়িত কৃষকদের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলাপ-আলোচনা করেন। এছাড়াও জারা লেবু চাষ ও উৎপাদন বিষয়ে স্থানীয় সেবা প্রদানকারী, বাজারজাতকরণ প্রক্রিয়ার সাথে জড়িত এ্যক্টরস, সেবা গ্রহণের ধরণ, উপজেলা কৃষি অফিসার ও সমাজসেবকদের সাথে আলোচনা করেন।

এসডিসি-সমষ্টি প্রকল্প যেসকল সাব-সেক্টর নিয়ে কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে তার মধ্যে অন্যতম হল জারা লেবু। জারা লেবু উৎপাদনের সাথে যেসব এলাকার কৃষক নিবিড়ভাবে জড়িত রয়েছে তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে গোয়াইনঘাট উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নে অবস্থিত মালগ্রাম। মালগ্রাম ও মালগ্রাম পাত্রপড়ার কৃষকগণ জারা লেবু উৎপাদনের সাথে অনেক বছর ধরে জড়িত আছে।আলোচনার মাধ্যমে জানা গেছে এ এলাকার কৃষকদের আয়ের অন্যতম উৎস হচ্ছে জারা লেবু চাষ। বিগত কয়েক বছর যাবৎ জারা লেবুতে ক্যাংকার নামক রোগ দেখা দিলে এর রপ্তানি বন্ধ হয়ে যায় মূলত তখন থেকেই কৃষকগণ জারা লেবু চাষে নিরুৎসাহিত হয়ে পড়ে। এরই ফলশ্রুতিতে জারা লেবুর বাগানগুলো আস্তে আস্তে নষ্ট হওয়ার উপক্রম দেখা দেয়, তবে যেসকল কৃষক উৎপাদন ধরে রাখে তারা খুব বেশি একটা লাভের মুখ দেখতে পায়না। কারণ হিসেবে কৃষকগণ উল্লেখ করেন, দেশের বাজারে বিশেষ করে সিলেটে মূলত জারা লেবুর চাহিদা থাকলেও দেশের অন্যান্য জেলায় এর চাহিদা ও পরিচিতি নেই।

আইডিয়া-এসডিসি-সমষ্টি প্রকল্প, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনিসুজ্জামান ও স্থানীয় সেবা প্রদানকারী মুজাহিদুল ইসলাম সমন্বিতভাবে জারা লেবুর গুনগত মান উন্নয়নে কৃষকদের পদ্ধতিগতভাবে জারা লেবু চাষের ক্ষেত্রে উৎসাহী করণে কারিগরি প্রশিক্ষণ প্রদান করে আসছেন।

পরিদর্শণকাল আরও উপস্থিত ছিলেন সিনিয়র প্রোগ্রাম ম্যানেজার মি. সোহেল ইবনে আলী, কেয়ার বাংলাদেশ-এর এ্যসিসটেন্ট কান্ট্রি ডিরেক্টর আরশাদ মাহমুদ, সিনিয়র টিম লিডার, গিয়াস উদ্দীন তালুকদার, এ্যাডভাইজার-সোস্যাল সার্ভিস, সাইফউদ্দীন আহমেদ, রিজিওন্যাল প্রোগ্রাম ম্যানেজার আব্দুল মালেক খাঁন, ফতেপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান চৌধুরী, প্রজেক্ট ম্যানেজার আমিনুর রহমান, সমাজ সেবক সুইটি রানী পাত্র ও সুরেন্দ্র পাত্র,উপকারভোগী প্রেমানন্দ পাত্র, সীরেন্দ্র পাত্র, উপকরণ বিক্রেতা আব্দুল রাজ্জাক ও বেলাল আহমদ, লাল তীর কোম্পানীর প্রতিনিধি মনির উদ্দীন, স্থানীয় পাইকার ফিরোজ মিয়া প্রমূখ।

উল্লেখ্য, আইডিয়া-এসডিসি-সমষ্টি প্রকল্প দরিদ্র সুবিধাবঞ্চিত এবং নারীদের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে-আয় বৃদ্ধি, পুষ্টিমান সমৃদ্ধ খাবার গ্রহন, উন্নততর স্বাস্থ্য ও শিক্ষা লাভের সুযোগ সৃষ্টি করার মাধ্যমে জীবন মানের উন্নয়ন ঘটানোর লক্ষ্যে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। -বিজ্ঞপ্তি

কমেন্ট
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •