চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েসহ ৬ প্রকল্প অনুমোদন

নিউজ ডেস্ক:: চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের সংশোধনী প্রস্তাবসহ ৬ প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এগুলো বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৮ হাজার ৭৩৯ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। এরমধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ৫ হাজার ৯২৯ কোটি টাকা এবং বৈদেশিক ঋণ সহায়তা থেকে ২ হাজার ৮১০ কোটি ৬৫ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে।

মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়।

গণভবন থেকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনা সচিব মামুন-আল-রশীদ, ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য সত্যজিৎ কর্মকার, তথ্য ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন এবং পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য মোসাম্মৎ নাসিমা বেগম ও আইএমইডির সচিব আবু হেনা মোরশেদ জামান প্রমুখ।

পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান বলেন, জমি অধিগ্রহণ এবং ডিজাইনের ত্রুটির কারণে চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পে ব্যয় ও মেয়াদ বেড়েছে।

তিনি আরও বলেন, মাশরুম একটি পুষ্টিকর খাদ্য। এর উৎপাদন বাড়ানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী বিশেষ করে জোর দিতে বলেছেন। গুটি (বাটন) জাতীয় মাশরুম চাষ করার দিকে নজর দিতে বলেছেন। কৃচ্ছ্রতার জন্য প্রধানমন্ত্রী পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ দিয়েছেন। একনেকের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর সফল হওয়ায় তাকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে।

এ সময় মেট্রোরেলের ভাড়া প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, এটা আমার বিষয় নয়। তাই এ বিষয়ে আমি বলতে চাই না।

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেন, লক্কর-ঝক্কর বাস নাকি এসি বাস, নাকি রিকশা ভাড়ার সঙ্গে মেট্রোরেলের ভাড়ার তুলনা করবেন। সেটি বড় প্রশ্ন। ৩০, ৪০ বছর বছর আগে ভারতের মেট্রোরেল তৈরি হয়েছিল। তখনকার ভাড়া এখন আধুনিক খরচে মেট্রোরেল ভাড়া এক হবে না। সুতরাং বর্তমান নির্ধারিত ভাড়া ঠিক আছে।

অনুমোদিত প্রকল্পগুলো হচ্ছে- কুমিল্লা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জাতীয় মহাসড়কে চারলেন জাতীয় মহাসড়কে উন্নীতকরণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৭ হাজার ১৮৮ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। বরিশাল-ভোলা-লক্ষ্মীপুর জাতীয় মহাসড়কের বরিশাল হতে ভোলা হয়ে লক্ষ্মীপুর পর্যন্ত সড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১৮৯ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। চট্টগ্রাম শহরের লালখান বাজার হতে শাহ আমানত বিমানবন্দল পর্যন্ত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৪৮ কোটি ১১ লাখ টাকা। ইনস্টিটিউট অব নিউক্লিয়ার মেডিসিন অ্যান্ড অ্যালায়েড সায়েন্সেস মিটফোর্ড, কুমিল্লা, ফরিদপুর, বরিশাল ও বগুড়ার সক্ষমতা বৃদ্ধি প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২১৪ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। মাশরুম চাষ সম্প্রসারণের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন ও দারিদ্র্য হ্রাসকরণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৯৮ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। আখাউড়া-আগরতলা ডুয়েলগেজ রেল সংযোগ নির্মাণ প্রকল্প।

কমেন্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published.