সুইডেন-ফিনল্যান্ডকে আটকাবে না তুরস্ক, তবে মানতে হবে শর্ত: মুখপাত্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: সুইডেন ও ফিনল্যান্ডের জন্য ন্যাটোর দরজা বন্ধ করেনি তুরস্ক। কিন্তু তুরস্ক চায় নর্ডীয় রাষ্ট্রসমূহের সঙ্গে আলোচনা করতে।

তুরস্ক চায় বিশেষ করে সুইডেনে তুরস্কের বিরুদ্ধে যেসব সন্ত্রাসী ও জঙ্গি কার্যক্রম চলছে সেগুলো যেন বন্ধ হয়।

শনিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে এমন কথা বলেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিস্যেপ তাইয়্যেপ এরদোগানের মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন।

তিনি জানিয়েছেন, ফিনল্যান্ড-সুইডেন ন্যাটোতে যোগ দিতে চাইলে তাদের এ শর্ত মানতে হবে।

এ ব্যাপারে মুখাত্র ইব্রাহিম কালিন বলেন, আমরা দরজা বন্ধ করে দিচ্ছি না। আমরা মূলত এ ইস্যুটি সামনে আনছি তুরস্কের জাতীয় নিরাপত্তার একটি বিষয় হিসেবে।

শুক্রবার প্রেসিডেন্ট রিস্যেপ তাইয়্যেপ এরদোগান সকলকে অবাক করে জানান, সুইডেন-ফিনল্যান্ডের ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার বিষয়টিকে তিনি ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন না।

এখন যদি তুরস্ক ন্যাটোতে ফিনল্যান্ড-সুইডেনকে না চায় তাহলে তারা যোগ দিতে পারবে না।

কারণ ন্যাটোতে যে ৩০টি দেশ আছে তাদের সবাইকে এ বিষয়ে সমর্থন দিতে হবে। একটি দেশ বেঁকে বসলেই বিষয়টি ঝুলে থাকবে।

এখন তুরস্কের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে সুইডেনে তাদের বিরুদ্ধে যেসব কর্মকান্ড চলে সেগুলো বন্ধ করতে হবে।

মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন সরাসরি বলেছেন, কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টি (পিকেকে) যেটিকে তুরস্ক, যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন সন্ত্রাসী সংঘটন হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে সেই পিকেকে-কে সমর্থন ও আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে সুইডেন।

ইব্রাহিম কালিন জানিয়েছেন, তাদের বার্তা পরিস্কার, সুইডেন ও যারা এই সন্ত্রাসী সংঘটনের সঙ্গে জড়িত তাদের এসব কর্মকান্ড বন্ধ করতে হবে।

এ ব্যাপারে মুখপাত্র ইব্রাহিম কালিন বলেন, যা করতে হবে তা পরিস্কার: তাদের পিকেকের কার্যালয়, কার্যক্রম, সংঘটন, ব্যক্তি ও অন্যান্য বিষয়গুলো বন্ধ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ন্যাটোর সদস্যপদ সবসময় একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। আমরা দেখব বিষয়টি কিভাবে যায়। কিন্তু এটি হলো প্রথম বিষয়টি যেটি আমরা মিত্র দেশগুলোর নজরে আনতে চাই এবং সুইডেনের সরকারের নজরে আনতে চাই।

ইব্রাহিম আরও বলেন, অবশ্যই আমরা সুইডেনের সরকারের সঙ্গে আলোচনা করতে চাই।

সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান

কমেন্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published.