তদন্তকাজ ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে প্রকৌশলী মনোয়ারের গোপন মিশন !

9 total views, 1 views today

সিলেট নিউজ টাইমস্ ডেস্ক:: সিলেট বেতারের গাছ বাণিজ্যের ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে বন বিভাগ গড়িমসি করছে বলছে অভিযোগ পাওয়া গেছে ।

বেতারের প্রকৌশলী মনোয়ার খান মোটা অংকের টাকা দিয়ে বন বিভাগের মুখ বন্ধ করার মিশনে নেমেছেন । আর এই কর্মে লিয়াজো করছেন বার্তা হিসাব রক্ষক খবির উদ্দিন আকন্দ ।

একটি বিশস্থ সূত্র জানায়,গতকাল রবিবার নগরীর একটি হোটেলে বন বিভাগের জনৈক কর্মকর্তা, প্রকৌশলী মনোয়ার খান ও বার্তা হিসাব রক্ষক খবির উদ্দিন আকন্দ এক গোপন বৈঠকে মিলিত হন । এই বৈঠকের আয়োজন করে দেন সিলেটের এক নিউজ পোর্টালের সম্পাদক।
এ সময় সেখানে আরও উপস্থিত ছিলেন জনৈক পরিবেশ কর্মী এবং বেতারের বার্তা বিভাগের এক কর্মকর্তা । নগদ ৩ লক্ষ টাকার বিনিময়ে তদন্ত কার্যক্রম ধামাচাপা দেওয়ার কৌশল নেয়া হয়েছে বলে বেতারের প্রকৌশল বিভাগ সংশ্লিষ্ট একটি সুত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে ।

তদন্ত কার্যক্রম সম্পর্কে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এস এম সাজ্জাদ হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিয়ম অনুযায়ী তদন্ত শুরু হয়েছে, যথারীতি তদন্ত কর্ম শেষ হলে প্রয়োজনীয় আইনী পদক্ষেপ নেয়া হবে । গোপন বৈঠক সম্পর্কে তিনি কিছু জানেন না বলেও জানান ।

উল্লেখ্য যে পরিবেশ অধিদপ্তর বা বন বিভাগের অনুমতি ছাড়াই উন্নয়ন পজেক্টের নামে সিলেট বেতারের ১৪৩ টি গাছ (যার আনুমানিক মূল্য ২০ লক্ষ টাকা) নাম মাত্র মুল্য ৪ লাখ ১ হাজার টাকায় নিলাম করা হয় । প্রকৌশলী মনোয়ার খান খবির উদ্দিন আকন্দের সহযোগীতায় হাজারী নামক জনৈক ঠিকাদারের মাধ্যমে চালানপত্র ছাড়াই অনেক গাছ বেতারের বাইরে পাটিয়ে দেন ।
এবিষয়টি প্রকাশ হলে পরিবেশবাদী ও সংস্কৃতিকর্মীরা বিক্ষোব্ধ হয়ে উঠেন।

বন বিভাগ কাটা গাছ যেভাবে আছে সেভাবে থাকার উপর স্থিতাবস্থা জারী করেন। পরবর্তীতে বন পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিনের নির্দেশে এ বিষয়ে তদন্ত কার্য শুরু হয়েছে।

কমেন্ট
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •