“শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী”

254 total views, 1 views today

ঈস্পিতা অবনী চৌধুরী’
——————————
হ্যামলক- অনবরত বৃষ্টি ঢেলে দিচ্ছে আকাশ, দু- হাতে।
পাঞ্চজন্য হাতে নিয়ে ঘুমিয়ে গ্যাছেন স্বয়ং ভগবান শ্রীকৃষ্ণ।
তাই, কুরুক্ষেত্র এখন নিজেই
অর্জুনের রথ সারথি।
আপনি কোথায় চললেন বৃদ্ধ পিতামহ?
ভূমিতে- আপনার ক্ষুব্ধ নিঃশ্বাসে, পতাকা উড়ছে যে!
এই ভরা অবেলায়, এ-কোন মৃগয়া-
বার্ধক্য যে আপনার রথের চাকায়!

গান্ধারী, একশত পুত্রের জননী
পিছিয়ে আছো কেন তুমি?
এই যুদ্ধক্ষেত্র– ক্লান্ত ভূমি
বিষ ও বিষাক্ত অণু-পরমাণু
তোমারি একশত ডিম্বাণু, তুমিই একমাত্র গর্ভাশয়।
তবে পরেনাও আজ ললাটে রক্ততিলক। অন্যায়ের ফসল।
হে সুবর্ণা জননী চোখ খুলো, অনুভব করো !

গুরু দ্রোণ, এগিয়ে আসুন আপনিও।
মনে আছে! সেই কতোদিন আগে-
গুরুদক্ষিণা কিভাবে নিয়েছিলেন হাসতে হাসতে-
ক্ষণিকের জন্যেও কী বুক কেঁপে ওঠেনি আপনার? এইতো, গুরুদ্রোণ!
একলব্য। দুর্মূল্য ক্ষতস্থানে,
আজ শুকিয়েছে অনভিজাত টগবগে লাল রক্ত !
হে গুরুদেব, শেষঅব্দি আপনিও নিরস্ত্র হয়েছিলেন নতমুখে!
অঙ্গীকারবদ্ধ পুরুষ,
আজ আপনিও হেরে গেলেন কুরুক্ষেত্রে!

জ্বলছে দাবানল!
অমৃত- কুম্ভ নিজ কাঁধে নিয়ে
অনেকদিন পর পিতামহ বিশ্ব ফিরলেন মহাভারতে।
তাঁর নিঃশ্বাস বায়ুতে উড়ছে সততা
নিশ্চিন্তে নির্ভীক ইশ্বর-
কণা ভাসছে বাতাসে।
তরঙ্গে তরঙ্গে।
দেবদত্ত বেজে উঠলো, নিষ্কলুষ আকাশে
কালপুরুষ, হে শ্রীকৃষ্ণ
আপনিও জেগে উঠুন এবার
সেই কখন থেকে, আর্তস্বরে-
খুঁজছে পাঞ্চালী।

কমেন্ট
শেয়ার করুন
  • 46
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    46
    Shares