সিলেট নিউজ টাইমস্ | Sylhet News Times

‘গাজীপুর নির্বাচন সরকার ও ইসির জন্য এসিড টেস্ট : বিএনপি

88 total views, 3 views today

নিউজ ডেস্ক:: শেষ হলো গাজীপুর সিটি করপোরেশন (গাসিক) নির্বাচনের সব ধরনের প্রচার-প্রচারণা। এখন শুধু ভোটগ্রহণের অপেক্ষা।

মঙ্গলবার (২৬ জুন) সকাল ৮টায় শুরু হবে বহুল আলোচিত নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। নির্বাচনী বছরের মাঝামাঝিতে এ নির্বাচন হওয়ায় এখন জাতীয় রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দুতে গাজীপুর। রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট সিটি নির্বাচনের ভালোমন্দও নির্ভর করছে এ নির্বাচনের ওপর। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের পাশাপাশি প্রথম থেকেই এ নির্বাচনকে গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে সংসদের বাইরে থাকা প্রধান দল বিএনপি।

বিএনপির একাধিক শীর্ষনেতা বলেছেন, ‘গাজীপুর নির্বাচন সরকার ও ইসির জন্য এসিড টেস্ট (অগ্নিপরীক্ষা)। আমরা দেখব এ নির্বাচনে তারা কী করে। খুলনার মতো যদি গাজীপুরে নির্বাচন হয় তবে তার পরিণতি হবে ভয়ঙ্কর। এ নির্বাচন দেখেই আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব।’

রবিবার (২৪ জুন) গুলশানে গাজীপুর সিটি নির্বাচন নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘যদি নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় আমরা আশাবাদী গাজীপুরে বিএনপি লক্ষাধিক ভোটে জয় লাভ করবে। প্রত্যেকটি ভোট কেন্দ্রে চারজন করে আমাদের দলীয় এজেন্ট দেয়া হয়েছে। কিন্তু তারা সেখানে থাকতে পারবেন কিনা জানি না।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘খুলনা নির্বাচনের মতোই বেপরোয়া আচরণ শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। খুলনা নির্বাচনের বহিস্কৃত কর্মকর্তাদের গাজীপুরে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। গাজীপুরে এসপি হারুন একেবারেই আওয়ামী লীগার। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য তাকে সরিয়ে নেওয়া দরকার ছিল। আমরা অনেক আগ থেকেই তা বলে আসছি। কিন্তু তা করা হয়নি। তিনি বেছে বেছে আমাদের দলীয় লোকদের আটক করছেন, সমর্থকদের হুমকি ধমকি দিচ্ছেন। আওয়ামী লীগের প্রার্থী পুলিশের গাড়ি করে প্রচারণায় যাচ্ছে। আর কি বাকি থাকে? শুনতে পাচ্ছি তিন হাজারের বেশি যেখানে ভোট আছে সেখানে আগের রাতে ব্যালট বক্স পূরণ করা হবে। নির্বাচন কমিশন যেন কিছুই দেখছে না।’

জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, ‘গাজীপুরে ধানের শীষের অসম্ভব জনসমর্থন রয়েছে। এই নির্বাচন হবে সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের জন্য একটা এসিড টেস্ট। আমরা দেখবো তারা কী করে। যদি খুলনা স্টাইলে নির্বাচন করে তাহলে এর পরিণতি হবে ভয়ঙ্কর।’

তিনি বলেন, ‘গাজীপুরের নির্বাচনের পরে আমরা ঠিক করবো, চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবো; বাকি তিন সিটি বরিশাল, সিলেট এবং রাজশাহীর নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো কি-না।’

গাজীপুর সিটি নির্বাচন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও গাজীপুর সিটি নির্বাচনে বিএনপির প্রধান সমন্বয় ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘গাজীপুরে সুষ্ঠু নির্বাচনের কোনো পরিবেশ নেই। তারপরও নির্বাচনে বিএনপি শেষ পর্যন্ত লড়াই করবে। এই নির্বাচনে সরকার খুলনার মতো ভোট ডাকাতি করতে চাইলে বিএনপি প্রতিরোধ গড়ে তুলবে।’

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন বিএনপি টেস্ট কেস হিসেবে নিয়েছে মন্তব্য করে বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বলেন, ‘আমরা জানি সরকার খুলনায় কি ধরনের নির্বাচন করেছে। তারপরও আমরা আমাদের নেত্রীর মুক্তি দাবি এবং আগামী দিনের আন্দোলনের অংশ হিসবেই আমরা এই নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। সরকার যদি এখানেও সুষ্ঠু নির্বাচনে ব্যর্থ হয় তাহলে আমাদের সিনিয়র নেতারা আগামী দিনের কর্মপন্থা নির্ধারণ করবেন।’

গাজীপুর সিটি করপোরেশন (জিসিসি) নির্বাচন সুষ্ঠু হওয়ার পরিবেশ নেই এমন অভিযোগ করে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘গাজীপুরে নির্বাচনী পরিবেশ দেখে মনে হচ্ছে পুলিশ-আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সরকারদলীয় প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করার জন্য টার্গেট করে মাঠে নেমেছে।’ বাংলাদেশে নির্বাচন ব্যবস্থা আওয়ামী লীগ ধ্বংস করে দিয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ বলতে যা বোঝায় গাজীপুরে তার ছিটেফোঁটাও নেই। সারা দেশের মতো এখানেও নির্বাচনী পরিবেশ ধ্বংস করে দিয়েছে তারা।’

সিটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গাজীপুরে বিএনপি নেতাকর্মীদের হয়রানি করে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে অভিযোগ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিএনপি ও ২০ দল মনোনিত মেয়র প্রার্থী হাসান উদ্দীন সরকারের পক্ষে যারা কাজ করছেন, এজেন্ট হবেন তাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছে এবং গ্রেফতার করছে। বিএনপির পক্ষ থেকে বারবার নির্বাচন কমিশনে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের ও প্রশাসনে অভিযোগ করলে তারা কোন ব্যবস্থা না করে নির্বিকার ভূমিকা পালন করছেন। অথচ প্রধানমন্ত্রী প্রায় প্রতিদিনই বলে যাচ্ছেন তিনি দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে চান। আসলে আওয়ামী লীগের কাজ ও কর্মের মধ্যে বাস্তবতার কোন মিল নেই।’

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, ‘গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সরকার দলীয় মেয়র প্রার্থীর সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের অভ্যান্তরীণ কোন্দল প্রকাশ্যে রুপ নিয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোট মনোনিত মেয়র প্রার্থী হাসান সরকারের বিজয় সুনিশ্চিত।’

 

কমেন্ট
শেয়ার করুন