সিলেট নিউজ টাইমস্ | Sylhet News Times

সিসিক নির্বাচন নিয়ে শঙ্কায় আরিফ-কামরান

107 total views, 1 views today

নিউজ ডেস্ক:: বিভিন্ন জরিপে জনপ্রিয়তার শীর্ষে বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী অবস্থান করছেন বলে বিএনপির সমর্থকরা বললেও তারা সিসিক নির্বাচন নিয়ে বেশ শঙ্কা রয়েছে। পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিনে আগামী সিটি নির্বাচনে সিলেটে ভোট কারচুপির শঙ্কা প্রকাশ করেছেন আরিফুল হক চৌধুরী নিজেও।

এসময় তিনি বলেন- আগামী সিটি নির্বাচনে যেন কোনো ধরনের কোন ইঞ্জিনিয়ারিং না হয় এমন প্রত্যাশা করি।

এই শঙ্কার অন্যতম কারণ হলো খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। বিবিসিসহ দেশি-বিদেশী মিডিয়াতে খুলনা সিটি নির্বাচনে ব্যাপকভাবে জাল ভোট ও কারচুপির খবর ফলাও করে প্রকাশ করেছে।

আরিফ সমর্থকরা বলছেন, এই অবস্থা যদি সিলেটের ক্ষেত্রে ঘটে তবে জনতার ভোট পাবেন আরিফ আর মেয়র হবেন কামরান।

তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন ভিন্ন কথা- তাদের মতে সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হবে। কারণ জাতীয় নির্বাচনের কয়েক মাস আগে অনুষ্ঠিত সিসিক নির্বাচনে কোন ধরনের কারচুপি বা অবিশ্বাসযোগ্য নির্বাচন করে সরকার নিজেদেরকে বিতর্কিত করবেনা।

অন্যদিকে সিলেট সিটি কর্পোরেশনে সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানও সিসিক নির্বাচন নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন। তাঁর শঙ্কার কারণ অবশ্য কিছুটা ভিন্ন।
এই নির্বাচনে যদি তিনি পরাজিত হোন তবে তাঁর রাজিনৈতিক জীবনে ব্যাপক ক্ষতি হবার সম্ভাবনা রয়েছে। তিনি আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নেতা।

সিলেট পৌরসভা এবং সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ইতোপূর্বে যারা একবার চেয়ারম্যান পদে হেরেছেন তারা আর ফিরে আসতে পারেননি। পৌর চেয়ারম্যান বাবলুল হোসেন বাবুল এবং আ ফ ম কামালের ক্ষেত্রেও এমনটি ঘটেছে।

সাম্প্রতিক সময়ে নগর উন্নয়নে বর্তমান মেয়র আরিফুল হকের কর্মতৎপরতা প্রশাসন, সরকার এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে এক ধরনের ইতিবাচক ধারনার জন্ম দিয়েছে। যা কোন অবস্থায় বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের জন্য সুখকর নয়।

অন্য একটি সূত্রমতে, আগামী ২২ তারিখ আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটের সিনিয়র নেতাদের নিয়ে বৈঠক করার কথা রয়েছে। এই বৈঠকে সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে প্রার্থী নির্ধারণ করা হবে। সিসিক নির্বাচন সংক্রান্ত রির্পোট সমুহ যদি কামরানের বিপক্ষে যায় তবে সে ক্ষেত্রে বদর উদ্দিন আহমদ কামরানকে মনোনয়ন না দিয়ে অন্য কাউকে দেয়া হতে পারে বলে অনেকেই মনে করছেন।

আর এ ক্ষেত্রে এগিয়ে আছেন সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ। আর বদর উদ্দিন আহমদ কামরানকে সিলেট-১ আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী করা হতে পারে।

সাধারণ মানুষের ধারণা-সিলেটে যখন সকল নির্বাচন শান্তিপূর্ণ এবং নিরপেক্ষ হয় তখন সিলেট সিটিকর্পোরেশন নির্বাচন অবশ্যই শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ হবে।

কমেন্ট
শেয়ার করুন