সিলেট নিউজ টাইমস্ | Sylhet News Times

সিলেট সদরের কান্দিরগাঁও ভাগাড়পারে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ১ জন নিহত

87 total views, 1 views today

সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরসভার জননন্দিত মেয়র, প্রবীণ রাজনীতিবিদ সিরাজুল জব্বার চৌধুরীর দাফন সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার বিকেল ৩টায় গোলাপগঞ্জ উপজেলা সদর সংলগ্ন এমসি একাডেমী মডেল স্কুল ও কলেজ মাঠে মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরীর জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। জানাযার নামাজের বিশাল মাঠের কানায় কানায় ভরে যায় পূর্ব সিলেটের রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন, সুশিল সমাজের নেতৃবৃন্দসহ মুসল্লিদের ঢলে।

জোহরের নামাজের পর থেকে জানাযার মাঠে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মুসল্লিরা ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ জড়ো হতে থাকেন। শুক্রবার মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরীর লাশ বাড়িতে আনা হয় এবং ওই দিন ৪টা পর্যন্ত লাশ বাড়িতে রাখা হঢ। পরে ডায়াবেটিক হাসপাতালের হিমাগারে রাখা হয়। শুক্রবার সমস্ত দিন হাজার হাজার মানুষজন এক পলক দেখার জন্য ভিড় জমান মরহুমের বাড়িতে। শনিবার মেয়রের লাশ গোলাপগঞ্জ পৌরসভা মাঠ ও এমসি একাডেমী মডেল স্কুল ও কলেজে আনা হলে পূর্ব সিলেটের হাজারো মানুষজন এক নজর দেখার জন্য ফের ভিড় জমান।

জানাজার নামাজে উপস্থিত ছিলেন- শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট-৫ আসনের এমপি আলহাজ্ব সেলিম উদ্দিন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট লুৎফুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা জামায়াতের আমির মাওলানা হাবিবুর রহমান, গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট ইকবাল আহমদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ, সভাপতি সরওয়ার হোসেন, বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান খান, বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য ডাঃ শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী এবং পূর্ব সিলেটের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, নির্বাচিত প্রতিনিধি, গোলাপগঞ্জ পৌরসভার কাউন্সিলরবৃন্দসহ হাজার হাজার মুসল্লিগণ জানাযার নামাজে উপস্থিত হন।

জানাযার নামাজ শেষে মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরীকে রণকেলী বনবাড়ী গোরস্থানে দাফন করা হয়।

উল্লেখ্য, গোলাপগঞ্জ পৌরসভার মেয়র সিরাজুল জব্বার চৌধুরী গত প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে হৃদ রোগে আক্রান্ত হয়ে সিলেটের একটি ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পরে কিছুটা সুস্থ হলে ২৩ মে তার হার্ট সার্জারী করা হয় ঢাকার ল্যাব এইড হাসপাতালে এবং সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার ৩টা ২০ মিনিটের সময় মৃত্যু বরণ করেণ। তিনি গোলাপগঞ্জ ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান, গোলাপগঞ্জ পৌরসভার সাবেক পৌর প্রশাসক ছিলেন।

এছাড়ও তিনি গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকসহ একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি মৃত্যৃ কালে স্ত্রী, ২ ছেলে ও ২ মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

কমেন্ট
শেয়ার করুন