খাদিম নগরের বিসিক এলাকায় বাড়ীতে ঢুকে গুলি ও ভাংচুর সন্ত্রাসীরা

86 total views, 1 views today

নিজস্ব প্রতিবেদক:: সিলেটের খাদিম নগরের রুস্তুমপুর বিসিক এলাকায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এক যুবককে প্রাণে হত্যার উদ্দেশ্যে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমনকি আতংক ছড়াতে ঐ এলাকার সন্ত্রাসীরা বসতবাড়ীতে ঢুকে বন্দুক দিয়ে ফাকা গুলি, আসবাবপত্র ভাংচুর, হুমকি ধমকিসহ চাকু দিয়ে যুবকের বৃদ্ধ বাবাকে আহত করার অভিযোগ করা হয়েছে। আহত এই যুবক আশরাফুল ইসলাম (২১) খাদিম রুস্তুমপুর এলাকার বাসিন্দা।

এ বিষয়ে তিনি নিজে বাদী হয়ে শাহপরাণ থানায় ৯ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা ৬/৭ জনের নামে একটি মামলা দায়ের করেছেন (নং ০৩, ০৩/০২/\’১৮)

মামলা সুত্রে জানা যায়, ১ ফেব্রুয়ারি জরুরী কাজে বিসিক এলাকার মার্কেটে যান আশরাফুল। পুর্ব শত্রুতার জের ধরে আলা উদ্দিন ওরফে আলাইয়ের হুকুমে আলাল আহমদ, জামাল আহমদ, বাহার, জালাল হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ঐ যুুবককে আঘাত করে মারাত্মকভাবে আহত করে। মুহিনসহ আরো অজ্ঞাতনামা বিবাদীগণ কিল ঘুসি লাথি মারতে থাকে এবং মৃত্যু নিশ্চিত হয়েছে ভেবে রাস্তায় ফেলিয়া চলিয়া যায়।

বিবাদীগণ এতেই ক্ষান্ত না হয়ে ওই যুবক হাসপাতালে চিকিতসাধীন থাকা অবস্থায় তার ঘরে ঢুকে ক্ষতিসাধন করে।

এই বিষয়ে মামলার এজহার সুত্রে জানা গেছে, বিবাদীগণ শুক্রবার (২ফেব্রুয়ারি) বসতবাড়ীতে ঢুকে আসবাব পত্র ভাংচুর করে। বাধা প্রদান করায় যুবকের পিতা আব্দুল আজীজকে (৬৫) আহত করে। বিবাদী তোফায়েলসহ অন্যান্যরা বন্দুক দিয়ে ফাকা গুলি করে ভয়ভীতি ও হুমকি-ধামকি প্রদর্শন করে। ভাংচুরে প্রায় দুই লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন করে।

এ বিষয়ে মামলার বাদী আশরাফুল ইসলাম জানান, বিবাদীগণ এলাকার এক প্রভাবশালী নেতার ছত্রছায়ায় বেপরোয়া। আমি সিলেট সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের রনজিত গ্রুপের ছাত্রনেতা নাজমুল বলয়ের সাথে জড়িত থাকায় তাদের চক্ষুশুলে পরিণত হয়েছি। তারা আমাকে মারধর করে ক্ষান্ত না হয়েও আমার পরিবারের সদস্যদের উপর হামলা করছে। তাদের হাত থেকে আমার ছোট ভাই তাজিম এবং আমার বৃদ্ধ পিতাও রেহাই পায় নি।

এমনকি আমাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে বাঁচিয়ে তোলায় আমার বন্ধু ছাত্রলীগকর্মী সাজনের বাসায়ও হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসী আলাই বাহিনী।

তিনি প্রশাসনসহ সকলের কাছে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা, তার বাসা বাড়ী ভাংচুরসহ পরিবারের সদস্যদের উপর হামলার বিচার চেয়েছেন।

কমেন্ট
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •