ত্রিদেশীয় সিরিজে ফিরছেন এনামুল হক বিজয়

স্পোর্টস ডেক্স::   ২০১২ সালে চিরচেনা খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে অভিষেক হয়েছিল এনামুল হক বিজয়ের। দেশ সেরা ওপেনার তামিম ইকবালের সঙ্গে ব্যাট করতে নেমে ৮৮ রানের জুটি গড়লেন। শক্তিশালী ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলারদেরকে ঠিক মতো শায়েস্তা করেছেন। সাতটি অসাধারণ বাউন্ডারি হাঁকিয়ে নিজের জাত চিনিয়েছিলেন তিনি। ওই ম্যাচে ৬২ বলে ৪১ রান করে আউট হন এ ওপেনার। লাকি বয় হিসেবে খেলতে নামেন তিনি। সেদিন ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে সাত উইকেটে জয় পায় টাইগাররা।

নিউজিল্যান্ডে ২০১৫ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে খেলার সময় ফিল্ডিং করতে গিয়ে হঠাৎ ডান কাঁধে আঘাত পান এনামুল। সঙ্গে সঙ্গে তাকে নেয়া হয় স্থানীয় হাসপাতালে। পরে তার আর ব্যাটিংয়ে নামা হয়নি। তার পরিবর্তে তামিমের সঙ্গে ওপেন করতে নামেন সৌম্য সরকার। আর দলে যোগ দেন ইমরুল কায়েস।

বিশ্বকাপে নেলসনের ওই ম্যাচটি পর্যন্ত ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ৩০ ম্যাচে মোট ২৭টি ইনিংস খেলেছেন এনামুল। আর মাত্র ৫০ রান করলেই ক্যারিয়ারে ১ হাজার রানের মাইলফলক ছোঁবেন তিনি। তিনটি করে হাফ সেঞ্চুরি ও সেঞ্চুরি রয়েছে তার। এনামুলের ব্যাটিং গড় ৩৫.১৮ যা বাংলাদেশিদের মধ্যে সেরা।

ইনজুরি কাটিয়ে খেলায় ফিরলেও জাতীয় দলে ব্রাত্য এনামুল। তবে বাংলাদেশ ‘এ’ দল ও জাতীয় ক্রিকেট লিগে (এনসিএল) নিয়মিত নিজের সেরাটা দিয়ে যাচ্ছেন এ তারকা ব্যাটসম্যান। সম্প্রতি এনসিএলে খুলনার হয়ে দুটি ডাবল সেঞ্চুরিও করেছেন তিনি।

চলতি মাসের ১৫ তারিখ ঢাকায় শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়েকে নিয়ে শুরু হচ্ছে ত্রিদেশীয় সিরিজ। বাংলদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) ঘোষিত প্রাথমিক স্কোয়াডে নাম আছে এনামুলের। গেলো মাসের শেষ দিকে মিরপুরে ক্যাম্পেও যোগ দেন তিনি।
সিরিজকে সামনে রেখে নিজেদের ঝালিয়ে নিতে আজ শনিবার প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে মাঠে নেমেছেন টাইগাররা। কাল শুক্রবার ছোট করা হয়েছে প্রাথমিক দল। ৩২ সদস্যের দল থেকে বাদ পড়েছেন আট জন।

এদিকে সাকিব আল হাসান নেতৃত্বাধীন বিসিবির লাল দলের হয়ে মাঠে নামছেন ২৫ বছর বয়সী এনামুল। তবে ম্যাচের আগের দিন অনুশীলনের সময় হাতে আঘাত পেয়েছেন সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস ও সাব্বির রহমান। আর এ কারণেই ফের কপাল খুলতে পারে ফার্স্ট ক্লাস ক্যারিয়ারের ৪৩.৫৬ ও লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারে ৩১.৯৬ গড় থাকা এনামুলের।

যদিও তিনজনের কারও চোটই গুরুতর নয়। এ নিয়ে জাতীয় দলের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, ‘বড় কিছুই নেই। সবই ঠিক ছিল। আর ক্রিকেট অনুশীলনে এমন একটু আধটু আঙুলে লাগবেই। বলের খেলা বল আসবেই। বড় কিছু না।’

শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়েকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ শুরু হবে আগামী ১৫ জানুয়ারি। দিবারাত্রির সবগুলো ম্যাচই হবে মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে। প্রতিটি দল পরস্পরের মুখোমুখি হবে দুবার করে। আর ফাইনাল হবে ২৭ জানুয়ারি।

কমেন্ট
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •