ছাত্রলীগ আমার রাজনীতির পাঠশালা:আরাফাত চৌধুরী আজাদ

71 total views, 1 views today

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রক্তের উপর পা রেখে সংগঠন ক্ষমতা আসে”অতচ সেই ছাত্রলীগ সব সময় অসহায় ও এতিমের মত সারা জীবন সংগঠনের চাকা সচল রাখে আসছে ছাত্রলীগ আঘাত পেলে আমার হ্নদয়ে আঘাত লাগে”ছাত্রলীীগ লাঞ্জনা হলে আমার জীবন চলার পথ লাঞ্চনা হয় আমি মনে করি”জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৪৮ সালে ৪জানুয়ারী বাংলাদেশ ছাত্রলীগ প্রতিষ্টা করেন”পিতা মুজিবের আদর্শে গড়া বাংলাদেশ ছাত্রলীগ”ছাত্রলীগ প্রতিষ্টা লগ্ন থেকে এখন পর্যন্ত দেশের সকল আন্দোলন রক্ত দিয়ে ভূমিকা পালন করে আসছে।

সেদিন ১৯৯৮ সালে নবীগন্জ পৌরসভা ৬নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে আমার ছাত্রলীগ রাজনীতির অভিষেক হয়”তারি ধারাবাহিকতা পরবর্তিতে পৌর ছাত্রলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক,তার পর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক,তার পর পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক,পরবর্তিতে সিলেট মহানগর তাঁতী লীগের সহসভাপতি সর্বশেষ ও এখন পর্যন্ত যে দায়িত্বে আছি সেটা সিলেট জেলা তাঁতী লীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়কের দায়িত্বে।

সেদিন ১৯৯৮ সালে শুরু হয়েছিল পিতা মুজিবের আদর্শের সংগঠনের রাজনীতির যাত্রা যার ধারাবাহিকতায় এখন ও আছি জীবনের শেষ রক্ত থাকা পর্যন্ত গেয়ে যাব পিতা মুজিবের আদর্শের স্ল-গান জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

আমার একটাই পরিচয় আমি এশিয়ার সর্ব বৃহত্তম ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একটি ইউনিটের ছাত্রলীগ কর্মী। ছাত্রলীগ আঘাত পেলে আমার হ্নদয়ে আঘাত লাগে” ছাত্রলীগ লাঞ্চনা হলে আমার জীবনের চাবি লাঞ্চনা হয় আমি মনে করি”ছাত্রলীগ আমার যৌবনের একটি অংশ,ছাত্রলীগ আমার পেলে আসা শৈশব,ছাত্রলীগ আমার কৈশরছাত্রলীগ আমার রাজনীতির পাঠশালা।

দুখ্যের বিষয় হল আমাদের বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিশ্বশান্তির দূত গনতন্ত্রের মানসকন্যা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী চারা কেউ নেই ছাত্রলীগ কে দেখার,ছাত্রলীগ একটি এতিম সংগঠন আমি মনে।

অপ্রিয় হলে ও সেটা সত্য যে বাংলাদেশের সকল আনন্দোলন থেকে এখন পর্যন্ত যত রক্ত দিয়েছে আর কোন সংগঠন দেখাতে পারবে না,১৯৭১সালে ২০হাজার ছাত্রলীগ নেতা কর্মী স্বাধীনতার জন্য প্রান দিয়েছে।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রক্তের উপর পা দিয়ে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসে”অতচ সেই ছাত্রলীগের দূর্দিনে কেউ নেই পাশে একমাত্র বঙ্গকন্যা রাষ্ট্রনায়ক আওয়ামীলীগ সভানেত্রী চারা কেউ নেই ছাত্রলীগ কে দেখার।

আজ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের শুভজন্মদিনে ছাত্রলীগের বর্তমান ও ভবিষ্য শুভকামনা করি”
জীবনের শেষ মুহুর্তে একজন সাবেক ছাত্রলীগের সাবেক কর্মী হয়ে গেয়ে যাব পিতা মুজিবের গান”জীবনের শেষ রক্ত পর্যন্ত ছাত্রলীগ সহ আওয়ামী সংগঠন ও দেশের কল্যানে করে যাব কাজ”জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

“সাবেক ছাত্রলীগ নেতা,সিলেট জেলা তাঁতী লীগ,সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আরাফাত চৌধুরী আজাদ আজ উনার ফেইজবুকে এমন মনের অনুভুতি প্রকাশ করেন।

আরাফাত চৌধুরী আজাদ ,সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক সিলেট জেলা তাঁতী লীগ”( সাবেক সভাপতি নবীগন্জ পৌর ৬নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগ,সাবেক আইন বিষয়ক ও সাংগঠনিক সম্পাদক নবীগন্জ পৌর ছাত্রলীগ/সাবেক যুগ্ম আহবায়ক পৌর যুবলীগ,সাবেক সহসভাপতি সিলেট মহানগর তাঁতী লীগ)

কমেন্ট
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •