আজ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী সিলেটে ছাত্রলীগের ব্যাপক আয়োজন

27 total views, 1 views today

বাংলাদেশের বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংগ্রামে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব দানকারী দেশের সবচেয়ে প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ। বাংলা ও বাঙালির স্বাধীনতা ও স্বাধিকার অর্জনের লক্ষ্যেই মূল দল আওয়ামী লীগের জন্মের এক বছর আগেই প্রতিষ্ঠা পেয়েছিল গৌরব ও ঐতিহ্যের এ ছাত্র সংগঠনটি। ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করেন। তার নেতৃত্বেই ওই দিন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হলে আনুষ্ঠানিকভাবে এর যাত্রা শুরু হয়। তত্কালীন তরুণ নেতা শেখ মুজিবের প্রেরণা ও পৃষ্ঠপোষকতায় এক ঝাঁক মেধাবী তরুণের উদ্যোগে সেদিন যাত্রা শুরু করে ছাত্রলীগ।

১৯৪৯ সালে তত্কালীন পাকিস্তানের প্রথম বিরোধী দল হিসাবে ‘আওয়ামী মুসলিম লীগের আত্মপ্রকাশ ঘটে, যা পরে আওয়ামী লীগ নাম ধারণ করে এ দেশের স্বাধিকার ও স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্ব দেয়। এ প্রেক্ষাপটে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বাঙালি জাতির ইতিহাসে বিশেষ তাত্পর্যপূর্ণ। উপমহাদেশের সর্ববৃহত্ ও প্রাচীন ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের গৌরব, ঐতিহ্য, সংগ্রাম ও সাফল্যের ৭০তম বার্ষিকী উপলক্ষে সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ।

গৌরব, ঐতিহ্য ও সংগ্রামের ৭০ বছরের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ছাত্রলীগ পাঁচদিন ব্যাপী বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। আজ সকাল সাড়ে ছয়টায় সংগঠনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ সকল সাংগঠনিক কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। সকাল সাড়ে ৭টায় রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে রক্ষিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হবে। সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে কেক কাটা হবে। ঢাকার মধ্যে অবস্থিত ইউনিটগুলো ছাড়া দেশের সকল সাংগঠনিক ইউনিটে আনন্দ শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে।

সিলেট ছাত্রলীগের আয়োজন:
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সিলেট নগরীকে বর্ণিল সাজে সাজাবেন তারা। থাকবে তোরণ, আলোকসজ্জা। আর দেয়াললিখনের মাধ্যমে তুলে ধরা হবে সংগঠনের ইতিহাস-ঐতিহ্য এবং আন্দোলন সংগ্রামের সাফল্য। আর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর দিনে আয়োজন করা হয়েছে বর্ণ্যাঢ্য র‌্যালী ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার।

ইতোমধ্যে সিলেটে সব ধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। এছাড়া মঙ্গলবার রাতে আয়োজন সম্পন্ন করতে প্রস্তুতি সভা করেছে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগ। এসভায় নগর ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের দেওয়া হয়েছে প্রয়োজনীয় দিকে নির্দেশনা।

শুধু সিলেট মহানগর ছাত্রলীগ নয় সিলেটে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা এবং সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। সিলেট জেলা ছাত্রলীগের কমিটি না থাকায় নির্ধারিত কোন কর্মসুচি দেয়নি তারা। তবে, পৃথক পৃথকভাবে সংগঠনের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করবেন জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

সিলেটে মহানগর ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দের সাথে কথা বলে জানা যায়- নগরীর বিভিন্নস্থানে মহানগর ছাত্রলীগের উদ্যোগে বানানো হবে তোরণ। সড়কের মোড়ে-মোড়ে টাঙানো হবে জাতীয় পতাকা ও সংগঠনের পতাকা। টাঙানো হবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি দিয়ে বিলবোর্ড, ব্যানার। নগরীর বিভিন্নস্থানে দেয়াললিখনের মাধ্যমে আর ব্যানার ফেস্টুনে তুলে ধরা হবে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ইতিহাস-ঐতিহ্য, আন্দোলন সংগ্রামসহ বিভিন্ন অর্জন। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর দিনে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, কেক কাটা ও সিলেট রেজিস্ট্রারি মাঠ থেকে বের করা হবে বর্ণ্যাঢ্য র‌্যালী। র‌্যালীকে সুন্দর করে তুলতেও তারা নিচ্ছেন প্রস্তুতি। ঐদিন সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আয়োজন করা হয়েছে সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার।

এ প্রসঙ্গে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম তুষার বলেন- বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এশিয়া মহাদেশের সবচেয়ে বড় ছাত্র সংগঠন। ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আমরা ইতিহাস-ঐতিহ্য, সংগ্রাম ও সাফল্য তুলে ধরবো। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীকে জাকজমকভাবে পালন করতে ইতোমধ্যেই আমরা প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। সুন্দর ও সফলভাবে আমরা সংগঠনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করতে চাই।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আয়োজনের ব্যাপারে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হৃত্বিক দেব বলেন- এশিয়ার বৃহত্তম ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনে নানা কর্মসূচী হাতে নিয়েছে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর প্রথম প্রহরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে। এছাড়া রয়েছে ফানুশ উড়ানো। ঐদিন সকালে রয়েছে বর্ণ্যাঢ্য র‌্যালী, কেক কাটা, প্রীতি ফুটবল ম্যাচ ও মিষ্টি বিতরণ। আর র‌্যালীতে থাকবে ছাত্রলীগের ইতিহাস ও ঐতিহ্য দিয়ে তৈরী বিভিন্ন পোস্টার।

এদিকে সংগঠনের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে তিনদিনব্যাপী নানা আয়োজন করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। তাদের আয়োজনের মধ্যে রয়েছে র‌্যালী, কেক কাটা, বেলুন উড্ডয়ন, রক্তদান কর্মসূচী, প্রীতি ফুটবল ম্যাচ, মিষ্টি বিতরণ, কুইজ প্রতিযোগিতা ও শীতবস্ত্র বিতরণ।

এ ব্যাপারে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. রুহুল আমিন বলেন- ২০১৮ সাল বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রত্যাশার বছর। ছাত্রলীগ চেষ্টা করে সৃষ্টিশীল কিছু করার, সবসময়ই ভালো কিছু করার। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশে যেভাবে ছাত্রলীগের গৌরবের ইতিহাস তুলে ধরা যায় আমরা সেভাবে কাজ করবো। আমরা সরকারের উন্নয়নগুলোও শিক্ষার্থীসহ রাজধানীতে বসবাসরত মানুষের কাছে পৌঁছাতে চাই।

এসব ইউনিট ছাড়াও সিলেটের বিভিন্ন ইউনিটের নেতা-কর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে প্রতিষ্ঠাবাষির্কী নিয়ে তাদের মধ্যে উৎসব বিরাজ করছে। ঐতিহ্যবাহী ছাত্রসংগঠনের সাথে যুক্ত হতে পেরে অনেক নেতাকর্মী নিজেদের সৌভাগ্য মনে করছেন সেই সাথে প্রতিষ্ঠাবাষির্কী সফল হোক সে কামনাও করেছেন।

কমেন্ট
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •