অনুমতি না পেলেও সমাবেশের ব্যাপক প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি: রিজভী

60 total views, 1 views today

নিউজ ডেক্স:: বিএন‌পির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাস‌চিব রুহুল ক‌বির রিজভী ব‌লে‌ছেন, ‘সরকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিকে আগামীকালের সমাবেশের অনুমতি না দিয়ে গণতন্ত্র এবং জনগ‌ণের সা‌থে নাটক কর‌ছে। ইতোমধ্যে সমাবেশের কর্মসূচি উপলক্ষে বিএনপি ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। সংগঠনগুলো ঢাকা মহানগরীর জনগণকে সমাবেশে উপস্থিত হওয়ার জন্য প্রচার চালাচ্ছে।

বৃহস্প‌তিবার বেলা সকালে রাজধানীর নয়াপল্ট‌নে বিএন‌পির কেন্দ্রীয় কার্যাল‌য়ে এক সংবাদ স‌ম্মেল‌নে তি‌নি এসব ব‌লেন।

রিজভী ব‌লেন, ‘বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। বহুদলীয় গণতন্ত্র পূণরুদ্ধার করেছিলেন এ দলের প্রতিষ্ঠাতা, স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। বিএনপি তাদের সকল কর্মসুচি শান্তিপূর্ণ উপায়ে সম্পন্ন করে থাকে। অতীতে বিএনপি’র কর্মসচিতে বিশৃঙ্খলা হয়েছে এমন কোন নজীর নেই। আগামীকালের ৫ জানুয়ারীর গণতন্ত্র হত্যা দিবসের কর্মসুচিও বিএনপি শান্তিপূর্ণভাবে পালন করতে বদ্ধপরিকর। আওয়ামী নেতাদের বক্তব্যে মনে হচ্ছে-তারাই পরিকল্পিতভাবে বিএনপির শান্তিপূর্ণ সমাবেশ কর্মসূচির বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে একটা অশান্তির পরিবেশ তৈরী করতে চাচ্ছেন। তারা রাজনীতিকে সংঘাতের দিকে নিয়ে যেতে চাচ্ছেন। ইতোমধ্যে ঢাকাসহ দেশব্যাপী সরকারের নির্দেশে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী বিএনপি নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার নির্যাতনসহ নানাভাবে হয়রানী শুরু করেছে।’

তি‌নি ব‌লেন, ‘ঐ স্থানে একটি নাম না জানা সংগঠনকে অনুষ্ঠান করার অনুমতি দিয়ে যে নাটক করেছে সেই নাটকটি আসলে গণতন্ত্রের সাথে, জনগণের সাথে মশকরা করা। তবু আমরা এখনও আশা করবো সরকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অথবা বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করার অনুমতি দেবে। সভা-সমাবেশ করা রাজনৈতিক দলগুলোর গণতান্ত্রিক অধিকার। আমি অবিলম্বে বিএনপি’র শান্তিপূর্ণ কর্মসুচিতে অনুমতি দেয়ার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আবারো আহবান জানচ্ছি।’

এসময় তিনি ‘আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জনাব ওবায়দুল কাদের এর সমালোচনা করে বলেন, ওবায়দুল কাদের বলেছেন ‘সমাবেশের অনুমতি দেয়া সরকারের বিষয় নয়, এটি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বিষয়’-কিন্তু জনগণ জানে, আপনাদের হুকুম ছাড়া আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এক পা ফেলতে পারে না।

রিজভী বলেন, আমি ওবায়দুল কাদের সাহেবকে পরিস্কার বলতে চাই আপনার নেত্রী শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী থাকলে এবং সংসদ বহাল থাকলে সেই নির্বাচন কখনোই সুষ্ঠ নির্বাচন হবে না। সেটি হবে নির্বাচনের নামে ভোটকেন্দ্রে ভোটারবিহীন নির্বাচন, যা শুধুমাত্র আপনাদের নিজেদের পছন্দসই ব্যক্তিদের নাম বিজয়ী হিসেবে ঘোষণা করা। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবশ্যই নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে হবে। জনগনকে বাইরে রেখে রাজনৈতিক দলগুলোকে বাইরে রেখে আর কোন জাতীয় নির্বাচন হবে না। আর আপনারা যেভাবে নির্বাচন করতে চান, সেই নির্বাচন হবে চৌর্যবৃত্তির নির্বাচন।’

কমেন্ট
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •