জেএসসি পরীক্ষার্থী দুই ছাত্রীর আত্মহত্যা ও এক জনের হার্ট এটাক করে মৃত্যু:আহত-৩

নিউজ ডেক্স:: জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষায় (জেএসসি) উত্তীর্ণ না হওয়ার কারণে চাঁদপুর শহরের প্রফেসর পাড়ার ফারজানা আক্তার (১৫) হার্ট এটাক হয়ে,নাছিমা আক্তার(১৩) বিষপানে ও ফরিদগঞ্জ উপজেলার পাইকপাড়া গ্রামের ফেরদৌসি আক্তার (১৫) গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। শনিবার দুপুরে ফল প্রকাশের পর উভয় ছাত্রীদের তাদের নিজ বসতঘরে এসব ঘটনা ঘটে।

এ ছাড়া এ বছর জেএসসিতে উর্ত্তীন হতে না পেরে সদর উপজেলার বাগরাবাজার এলাকার গোফরান গাজীর মেয়ে নাছরিন(১৫), শাহরাস্তি এলাকার আবু তাহেরের মেয়ে নুসরাত(১৩)ও ফরিদগঞ্জ এলাকার হানিফ সর্দারে মেয়ে রেহেনা আক্তার(১৪) জেএসসিতে উত্তীর্ণ হতে না পেরে আত্মহত্যার জন্য বিষ পান করে আহত হয়ে চাঁদপুর সরকারী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। ফারজানা চাঁদপুর শহরের প্রফেসর পাড়া দেওয়ান বাড়ীর দুলাল দেওয়ানের কন্যা। সে শহরের পীর মহসীন পৌর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী ছিলো। নাছিমা আক্তার মতলব উওর এলাকার নসু মিয়ার মেয়ে সে ফরাজীকান্দি বালিকা উচ্চ বিদ্যরয়ের ছাত্রী ছিল।

ফেরদৌসী পাইকপাড় গ্রামের মানিক সরদারের কন্যা। সে পাইকপাড়া ইউজিপি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী ছিলো। নিহত ফারজানার স্বজনরা জানান, ফলাফল প্রকাশের পর সে বিকেলে বিষপানে করে গুরুতর অসুস্থ্য হয়ে হার্ট এটাক হয়ে পড়ে। পরে তাকে উদ্ধার করে সন্ধ্যায় চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন।

এদিকে নাছিমা আক্তার (১৩) জেএসসি পরীক্ষায় এ বছর ফলাফল খারাপ হওয়ার খবর শুনে বিকেলে বিষপান করে আত্মহত্যার জন্য। তাৎক্ষনিক তার আত্বীয় স্বজনরা জানতে পেরে প্রথমে মতলব স্বাস্থ্য কমপ্লেসে নিয়ে ভর্তি। সেখান থেকে চাঁদপুর সরকারী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক অবস্থার অবনতি দেখে ঢাকা মেডিকেলে প্রেরন করে। তাকে ঢাকা নেওয়ার পথে রাত সারে ৮টায় নাছিমা কুমিল্লা গরীপুরের কাছে যাওয়ার পর মৃত্যু বরন করে।

অপরদিকে ফেরদৌসি আক্তারের স্বজনরা জানান, ফেরদৌসি জেএসসি পরীক্ষায় এ বছর ন গ্রেড পেয়ে উত্তীর্ন হয়। বিদ্যালয়ে গিয়ে ফলাফল ঘোষনার চাট দেখতে না পেয়ে জানতে পারেনি ফলাফল। সে ধারনা করেছে,সে গত বছরের মত এ বছরও উত্তীর্ণ হয়নি। বিকেলে বাড়িতে গিয়ে মা রেহেনা বেগমকে জানায়, সে মনে হয় ফেল করেছে। তার মা বিদ্যালয়ে আসে ফলাফল জানতে।এরই মধ্যে পরিবারের লোকজনের অজান্তে সে ঘরের কক্ষ বন্ধ করে সিলিং এর কাঠে গলায় উড়না পেছিয়ে আত্মহত্যা করে। তাকেও উদ্ধার করে রাতে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়।

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক নুরুল আলম মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তাদের ময়না তদন্ত শেষে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানাযাবে বলে জানান চিকিৎসক।

কমেন্ট
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •